ইউক্রেনে সাফল্য চায় যুদ্ধবাজরা

ইউক্রেনে সাফল্য চায় যুদ্ধবাজরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ খেরসন থেকে সেনা প্রত্যাহারের মতো অপমানজনক সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়ে আসছিলেন রাশিয়ার শীর্ষস্থানীয় যুদ্ধবাজ কর্মকর্তারা। তবে এই সিদ্ধান্তের পক্ষ নেওয়া ইউক্রেনের রুশ সেনাদের কমান্ডার এখন রয়েছেন চাপে, তাকে প্রমাণ করতে হবে খেরসন থেকে পিছু হটা রাশিয়ার জন্য উপযুক্ত ছিল। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এসব কথা জানা গেছে।

নৃশংসতার জন্য রুশ সংবাদমাধ্যম সের্গেই সুরোভিকিনকে ‘জেনারেল আর্মাগেডন’ নামে অভিহিত করছে। ৯ নভেম্বর খেরসন থেকে রুশ সেনাদের প্রত্যাহারের সুপারিশ করেন তিনি।

চেচনিয়া ও সিরিয়ায় যুদ্ধ করা ৫৬ বছর বয়সী সুরোভিকিন পদক পেয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কাছ থেকে। প্রত্যাহারের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরার দুই দিন পর খেরসন শহর থেকে সেনা সরিয়ে নেওয়া হয়। সেখানকার প্রায় ৩০ হাজার রুশ সেনাদের যুদ্ধেক্ষেত্রে অন্যত্র মোতায়েন করা হয়েছে বলে ধারণা করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এসব সেনাদের অনেককে দক্ষিণ থেকে পূর্ব ইউক্রেনে মোতায়েন করা হয়েছে। পূর্বাঞ্চলে এখন তুমুল লড়াই চলছে দুই বাহিনীর। একসময় বীরত্বের জন্য পদক পাওয়া সুরোভিকিন এখন চাপে রয়েছেন তার এই সিদ্ধান্ত সঠিক বলে প্রমাণের জন্য।

সুরোভিকিনকে উদ্দেশ করে গত সপ্তাহে যুদ্ধবাজ বলে পরিচিত আরটি টিভি’র এডিটর-ইন-চিফ মার্গারিটা সিমোনিয়ান বলেছেন, আমরা আপনার দারুণ ফলাফলের অপেক্ষা ও প্রার্থনা করছি।

সুরোভিকিনের প্রতি সিমোনিয়ান আহ্বান জানিয়েছেন, সমালোচকদের বাজে কথায় কান না দেওয়ার জন্য।

তার এই মন্তব্য মূলত খেরসন শহর থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহারের পর প্রভাবশালী সামরিক ব্লগাররা অসন্তুষ্ট হয়ে যে সমালোচনা করছেন সেটির প্রতি ইঙ্গিত করে বলা।

এই ব্লগারদের একজন ভ্লাদলেন তাতারস্কি। টেলিগ্রামে তার ৫ লক্ষাধিক ফলোয়ার রয়েছে। খেরসন থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহারের পর সেখানে ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সফরে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি। তাতারস্কি প্রশ্ন তুলেছেন, মস্কো কেন জেলেনস্কিকে হত্যা করেনি।

এক ভিডিও পোস্টে তিনি বলেছেন, আমরা কীসের জন্য নিজেদের রক্ত ঝরাচ্ছি? জেলেনস্কি কীভাবে খেরসন আসতে পারেন? প্রতীকীভাবে গুরুত্বপূর্ণ হতো যদি একটি গেরান (এক ধরনের ড্রোন) জেলেনস্কির মাথায় পড়তো। কিন্তু তা ঘটেনি। কেন? হয় আমাদের সর্বাত্মক যুদ্ধ করতে হবে, তা না হলে কিছুই করবে না।

রাশিয়ার কট্টর জাতীয়তাবাদী আলেক্সান্ডার ডুগিন। আগস্টে মস্কোর বাইরে তার মেয়ে দারিয়াকে হত্যা করা হয়। রাশিয়া দাবি করে আসছে, এই হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে রয়েছে ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় আততায়ীরা। ডুগিনও সুরোভিকিনের ওপর আরও চাপ তৈরি করছেন। তিনি বলেছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার দখল ছেড়ে দেওয়ার মতো শেষ ভূখণ্ড ছিল খেরসন।

জাতীয়তাবাদী অনলাইন নিউজ পোর্টাল জারগ্রাদকে ডুগিন বলেন, এই সীমায় পৌঁছানো হয়ে গেছে।

রুশ সরকারের সিনিয়র কর্মকর্তা ও যুদ্ধবাজরা বলছেন, একপর্যায়ে তারা খেরসনকে ফিরে পেতে চান। বাস্তবে এমন কিছু খুব শিগগিরই ঘটবে না বলে ধারণা করা হচ্ছে। এমনকি পূর্বাঞ্চলে অনুপ্রাণিত ও পশ্চিমা অস্ত্রে সজ্জিত ইউক্রেনীয় বাহিনীর প্রতিরোধ গুঁড়িয়ে নতুন ভূখণ্ড দখলের সম্ভাবনা, বিশেষ করে শীতে খুব একটা নেই।

কিয়েভ নিজেও রাশিয়ার দখলকৃত সব ভূখণ্ড পুনরুদ্ধারের অঙ্গীকারের করেছে। রুশ কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন, ইউক্রেন পশ্চিমাঞ্চলে নতুন যুদ্ধক্ষেত্র শুরু করতে পারে। কারণ, খেরসন থেকে প্রত্যাহার করা কিছু সেনাকে সেখানে মোতায়েন করেছে রাশিয়া।

ইউক্রেনের জ্বালানি অবকাঠামোতে হামলা আরও জোরদার করার জন্য সুরোভিকিনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বেশ কয়েকজন। ইউক্রেনকে আলোচনার টেবিলে বসতে বাধ্য করার জন্য এই কৌশল বাস্তবায়ন করছে রাশিয়া।

রাশিয়ার বিখ্যাত উগ্র-জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক টকশো উপস্থাপক ভ্লাদিমির সলোভিয়ব গত সপ্তাহে বলেছেন, রুশ সেনাবাহিনীর নায়ক জেনারেল সুরোভিকিনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি নাৎসি ইউক্রেনীয় জান্তার জ্বালানি অবকাঠামো পুরোপুরি ধ্বংসের জন্য।

রাষ্ট্রীয় টিভির অপর বিশ্লেষকরা প্রকাশ্যে সুরোভিকিনের যুদ্ধ পরিচালনা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এসব সমালোচনা খুব সতর্কতার সঙ্গে সাজানো হয়েছে, যাতে মনে হয় এগুলো প্রকৃত অর্থে জনগণের মধ্যকার বিতর্ক।

এমন একজন বিশ্লেষক দিমিত্রি আবজালভ অভিযোগ করেছেন তথ্যের ঘাটতি রয়েছে বলে। তিনি জানতে চেয়েছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার নির্দিষ্ট লক্ষ্য কী।

অপর এক বিশ্লেষক ম্যাক্সি ইউসিন অভিযোগ করেছেন, কয়েকজন রাজনীতিকের প্রকাশিত বক্তব্য মিথ্যা। তারা দাবি করেছিলেন যে রাশিয়ার সেনাবাহিনী এত শক্তিশালী যে তারা পোলিশ সীমান্ত, বার্লিন, ইংলিশ চ্যানেল ও লিসবন পৌঁছাতে পারবে।

রাষ্ট্রীয় টিভির এমন আলোচনাকে ‘ভাঁড়ামির অনুষ্ঠান’ বলেও উল্লেখ করেছেন ইউসিন।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০