জাপানি নারীর কাছে ৫ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশ সাবেক স্বামীর

উপচার ডেস্ক : আলোচিত দুই কন্যা শিশুর জাপানি মা নাকানো এরিকোর কাছে ৫ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন শিশু দুটির পিতা ইমরান শরীফ। একইসঙ্গে নোটিশ পাওয়ার ৭দিনের মধ্যে নাকানো এরিকোকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে। মঙ্গলবার ইমরান শরীফের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ এ নোটিশ দিয়েছেন। ইমরান শরীফ জাপান থেকে কন্যা শিশু দুটিকে অপহরণ করে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছেন- নাকানো এরিকো এই অভিযোগ করায় এই আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এরিকো এখন গুলশানের যে বাড়িতে অবস্থান করছেন সেই ঠিকানায় এই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশে বলা হয়েছে, ইমরান শরীফের বিরুদ্ধে শিশু দুটিকে জাপান থেকে অপহরণ করে বাংলাদেশে আনার অভিযোগ করা হয়েছে। শিশু দুটি বাংলাদেশের কানাডিয়ান ইনডারন্যাশনাল স্কুলে পড়ালেখা করছে। সেই স্কুলে লিখিতভাবে নাকানো এরিকো চিঠি দিয়ে বলেছে যে শিশু দুটিকে জাপান থেকে অপহরণ করে নিয়ে এসেছে পিতা ইমরান শরীফ। এই অপহরণের অভিযোগ সম্পূর্ন ভিত্তিহীন ও মানহানীকর। এমনকি শিশু দুটির সঙ্গে দেখা করানোর আগে মায়ের চোখ বেঁধে নেওয়ার অভিযোগও সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তার কোনো চোখ বাঁধা হয়নি। এভাবে বাংলাদেশে এসে মা নাকানো এরিকো বিভিন্নভাবে শিশু দুটির পিতা ইমরান শরীফকে হয়রানি ও তার মানহানি করছেন।

বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গত ৮ সেপ্টেম্বর এক আদেশে ৯, ১১, ১৩ ও ১৫ সেপ্টেম্বর-এই চারদিন দিবাগত রাতে মেয়েদের সঙ্গে মাকে থাকার অনুমতি দেন। অন্য সময় মা ও পিতা উভয়েই থাকতে পারবেন ওই বাসাতে। কন্যা শিশু দুটিকে নিয়ে বাইরে ঘোরাঘুরিরও অনুমতি দেন হাইকোর্ট। এছাড়াও মেয়ে দুটির মা ও পিতাকে নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে প্রচারিত সকল ভিডিও অপসারণে পদক্ষেপ নিতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি এসব ভিডিও নির্মাতা এবং আপলোডকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সিআইডির সাইবার ক্রাইম ইউনিটকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এর আগে গত ৩১ আগস্ট একই হাইকোর্ট বেঞ্চ সেই দুই কন্যা শিশুকে আপাতত আগামী ১৫ দিন জাপানি মা ও বাংলাদেশি পিতার সঙ্গেই গুলশান এক নম্বরে চার কক্ষের একটি ভাড়া বাসায় থাকার নির্দেশনা দেন। এরপর শিশু দুটিকে তেজগাঁও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার থেকে ওই বাসাতে স্থানান্তর করা হয়। ১৬ সেপ্টেম্বর পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। শিশু দুটির মা জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো’র করা এক রিট আবেদনের পরিপেক্ষিতে এসব আদেশ দিচ্ছেন হাইকোর্ট।

জানা যায়, জাপান থেকে কন্যা শিশু দুটিকে নিয়ে গত ২১ ফেব্রুয়ারি দুবাই হয়ে বাংলাদেশে আসেন পিতা ইমরান শরীফ। দেশে ফিরে সন্তান দুটিকে ঢাকায় কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেন। এ অবস্থায় গত ১৮ জুলাই এরিকো শ্রীলঙ্কা হয়ে বাংলাদেশে আসেন। এরপর বাংলাদেশের হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন মা এরিকো। এ আবেদনে হাইকোর্টের আদেশের পর গত ২২ আগস্ট রাতে শিশু দুটিকে পিতার বাসা থেকে উদ্ধার করে তেজগাঁও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখে সিআইডি পুলিশ। এ অবস্থায় গত ৩১ আগস্ট হাইকোর্ট খাসকামরায় শিশু দুটি ছাড়াও তাদের মা-বাবার বক্তব্য শোনেন।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০