দুর্গাপুরে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ কমিশনার সাইফুল পর্ব-১

দুর্গাপুরে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ কমিশনার সাইফুল পর্ব-১স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর দুর্গাপুর পৌরসভার ১ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাদক সম্রাট সাইফুল ইসলামের অপতৎপরতা কিছুতেই থামছে না। এলাকায় মাদকের রমরমা ব্যবসা বিতর্কিত কাদিয়ানী সংগঠনের কার্যক্রম প্রকাশ্যে চালালেও নিরব ভূমিকায় স্থানীয় প্রশাসন।

উপজেলার দেবিপুর গ্রামে কলিমউদ্দিন শেখের ছেলে সাইফুল ও তার ভাই শাহাবুল নিজেদের দরিদ্রতা বিমোচনে বেছে নেন মাদকের ব্যবসা শুরুতে গাঁজা, ফেনসিডিল দিয়ে শুরু করে একক আধিপত্য বিস্তার করেন। বাজারে আসে নতুন মরন নেশা ইয়াবা বলা চলে দুর্গাপুর উপজেলার অঘোষিত ডিলার হিসেবে নিয়োগ পান এই সাইফুল। শক্ত প্রতিপক্ষ না থাকায় এক মাদকের বিক্রি করে দুর্গাপুরের একটি যুব সমাজকে অন্ধকারে ডুবিয়ে দিয়ে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন কোটিপতি, তৈরী করেছেন আলিশান বাড়ি। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের অভিযোগ থাকলেও অবৈধ টাকার জোরে বারবার পার পেয়ে যান। তবে বিপত্তি বাঁধে কক্সবাজার থেকে বিপুল পরিমাণে ইয়াবা দুর্গাপুরে পাচার করতে গিয়ে ঢাকায় সাইফুলের নিয়োগ কৃত এজেন্ট জুয়েল রানা ইয়াবা সহ ডিএমপির গোয়েন্দা শাখা ( ডিবির) জালে ধরা খেলে। তাকে জিজ্ঞেসাবাদে বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। ২ জানুয়ারী ২০২২ সেই মামলার তদবিরের উদ্দেশ্যে ঢাকায় গেলে গ্রেপ্তার হন মূল হোতা মাদকের গডফাদার সাইফুল। (1U7AS) ডিএমপি এর পল্টন থানার এফআইআর নং-৩/০৩ অভিযুক্ত তিনি।
দীর্ঘদিন জেলে থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে ফের মাদকের সাম্রাজ্য ফেরাতে মরিয়া সাইফুল হুমকি ধামকি পেশীশক্তি প্রয়োগ করে এলাকার মানুষদের জিম্মি করে রেখেছেন। সাধারণ মানুষের দাবী অবিলম্বে সাইফুলকে আইনের আওতায় এনে এলাকার যুবসমাজ রক্ষার।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান, সাইফুল অবৈধ টাকার জোরে নিজের নামের সামনে কমিশনার যোগ করেছেন। ইয়াবার মরন নেশায় এলাকার যুবসমাজকে তারা ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে। গ্রেপ্তার হলেও দ্রুতই জামিনে মুক্ত হয়ে যায় এদের কোনো বিচার হয়না।
কমিশনার সাইফুলের সাথে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তা সম্ভব হয়নি।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০