প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন: রিজভী

উপচার ডেস্ক : সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পে হওয়া দুর্নীতির পক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবস্থান নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার, অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র বন্ধের দাবিতে ‘বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম’ এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ তুলে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ণ প্রকল্প করছেন। যাদের ঘরবাড়ি নেই, তাদের ঘরবাড়ি দেবেন। সেটা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। ভেঙেচুরে তছনছ হয়ে যাচ্ছে। এটাকে প্রধানমন্ত্রী বলছেন, ইট মেরে, হাতুড়ি মেরে, ছাগল দিয়ে এই ঘরবাড়ি ধ্বংস করা হয়েছে। এটার পেছনে যে লক্ষ-কোটি টাকা দুনীতি হয়েছে, সেটা প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করছেন না। তিনি হাতুড়ি, শাবল আর ছাগলকে দোষারোপ করছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির পক্ষে অবস্থান নিলেন। তিনি বলেন, অথচ যারা এই ধরনের আশ্রয়ণ প্রকল্পের অর্থ লোপাট করল, ধ্বংস করল, ভাঙল, তাদের কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ধরলেন না। তিনি অন্যদিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করলেন।

মানুষের মুক্তির কথা বললে সরকার গুম করে ফেলছে বলে অভিযোগ করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, কেউ যদি স্বাধীনতার কথা বলেন, স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলেন, মানুষের মুক্তির কথা বলেন, তিনি যদি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার কথা বলেন, তবে তার একমাত্র পুরস্কার এই সরকারের পক্ষ থেকে, তিনি গুম হয়ে যাবেন। দিনের বেলায় অথবা রাতের বেলায়। তাকে তুলে নিয়ে যাবে। তার কোনো হদিস পাওয়া যাবে না। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আাপনারা দেখছেন না- সত্যজিত রায়ের চলচিত্র গুপী গাইন বাঘা বাইন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে একজন গুপী গাইন আছেন শুধু মিথ্যার গান গেয়ে যান। তিনি হচ্ছেন ওবায়দুল কাদের। হঠাৎ করে এমন এমন কথা বলবেন যে, মনে হবে যে উনি বোধহয় বাংলাদেশের একেবারে বিবেক নিষ্পেষিত একজন প্রতিনিধি। অথচ তিনি যে অকপটে মিথ্যা কথা বলছেন সেটা তিনি বুঝতে পারেন না। তিনি বলছেন যে, বিএনপি আন্দোলনের কথা বলে, আন্দোলন বিলাসে ভোগছে।

তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব- আপনাদের কী মনে আছে, আপনারা গাড়ি-বাড়ি পুঁড়িয়ে আপনারা যে আন্দোলন করেছিলেন যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা হয়েছিল তাকে আপনারা সংবিধান থেকে মুছে দিয়েছেন। সেগুলোকে আবার ফিরিয়ে আনার জন্য ২০১৩-১৪-১৫ সালে যে আন্দোলন করেছে বিএনপি, সেই আন্দোলনের বিরুদ্ধে আপনারা নিষ্ঠুর ব্যবহার করেছেন। এদেশে নতুন একটি শব্দ আপনারা প্রতিষ্ঠিত করেছেন সেটি গুম। জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করলে শেখ হাসিনা খুশি হন উল্লেখ করে রিজভী বলেন, এই সরকার টিকে থাকতে হলে জিয়া পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে বলতে হবে। কারণ, স্বাধীনতার সঙ্গে তাদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাদের কোনো অর্জন নেই। যা অর্জন জিয়াউর রহমানের। সুতরাং জিয়াউর রহমানকে আক্রমণ করলে, তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করলেই তো শেখ হাসিনা খুশি হন। কিন্তু মিথ্যা কথা বলে যে ক্ষমতা টেকানো যায় না, এটা প্রধানমন্ত্রী কখনো উপলব্ধি করতে পারেন না।

বিএনপিকে সরকার ভয় পায় বলে তারা নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে বলেও অভিযোগ করেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব। ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান শামীমের সঞ্চালানায় মানববন্ধনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মজিবুর রহমান সারোয়ার, কেন্দ্রীয় নেতা শামীমুর রহমান শামীম, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, সাইদ হাসান মিন্টু, মুনীরুজ্জামান মুনির, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আহসান হাবিব লিংকন, মুসলিম লীগের মহাসচিব শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব এমএ বাশার, কল্যাণ পার্টির সহ-সভাপতি শাহিদুর রহমান তামান্না, নাগরিক অধিকার আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

 

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০