রাজাবাড়ীহাট আঞ্চলিক দুগ্ধ গবাদী উন্নয়ন খামারের সীমানা প্রাচীরের বেহাল দশা

“দেখার যেন কেউ নেই”

 

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি: রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রাজাবাড়ী হাটে অবস্থিত আঞ্চলিক দুগ্ধ উন্নয়ন খামারের সীমানা প্রাচীরের বেহাল দসা। দেখার জন্য কেউ নাই। এর ফলে খামারটি হারাতে বসেছে তার ঐতিহ্য। বর্তমানে খামারের সীমানা প্রাচীরের অবস্থা জরাজীর্ন হওয়ায় খামারের ভিতরে অবাধে প্রবেশ করছে বহিরাগতরা। এছাড়া খামারের ভিতরে সরকার কর্তৃক রোপণকৃত বিভিন্ন প্রজাতির ঘাস ও গাছ কেটে নিয়ে চলে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। বেড়েছে মাদকসেবীদের আড্ডা। এ নিয়ে খামারের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা পড়েছে চরম বিপাকে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায় রাজশাহীর কৃতি সন্তান সাবেক মন্ত্রী জাতীয় চার নেতার অন্যতম মরহুম কামরুজ্জামান এর জোর প্রচেষ্টায় ১৯৮০ সালে রাজশাহী শহর হতে ১৫ কিলোমিটির পশ্চিমে গোদাগাড়ী উপজেলার রাজাবাড়ী হাটে দেশে দুধ ও মাংসের চাহিদা মেটাতে নির্মিত হয় রাজাবাড়ী হাট আঞ্চলিক দুগ্ধ উন্নয়ন খামার। তৎকালীন খামারের পরিবেশ রক্ষার্থে ৪০ হাজার ৯০২ বর্গফিট আয়তনের সীমানা প্রাচীর নির্মান করা হয়েছিল। সরজমিন গিয়ে দেখা যায় ঐ সীমানা প্রাচীরের প্লাস্টার খুলে ইট ধসে একেবারে নড়বড়ে হয়ে গেছে। শুধু তাই নয় ৫ থেকে ২০ ফুট পর্যন্ত অন্তত ত্রিশটি স্থানে সীমানা প্রাচীরের ইট রডের কোন অস্থিত্যই খুজে পাওয়া যায়নি। যেটুকুরয়েছে সেগুলোর প্লাস্টার ধসে ইট খুলে যাওয়ায় বিভিন্ন স্থানে দেখা যাচ্ছে রডের চিহ্ন। আবার কিছু কিছু স্থানে প্লাস্টার ওট ধসে যাওয়ার ফলে রাতের আধারে ঐ সব সীমানা প্রাচীরের রড কেটে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। ভেঙ্গে যাওয়া স্থানগুলোতে দায় সারা হিসাবে দেয়া রয়েছে। বিভিন্ন গাছের ডালপালা। নাম প্রকাশ না করার স্বার্থে খামারের এক কর্মচারী জানান সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে তাদেরকে বাড়তি ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে। এ নিয়ে তারা চরম বিড়ম্বনায় পড়েছে। অপর এক কর্মচারী জানান ঐ সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে যাওয়ায় গত বছর গভীর রাতে খামারের একটি গরু বাহিরে গিয়ে স্থানীয় এক ব্যক্তির খেতের ফসল নষ্ট করায় খামার কর্তৃপক্ষকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা দিতে হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের দাবি অতি জরুরী ভিত্তিতে খামারের সীমানা প্রাচীর নির্মান করা না হলে খামারটি হারাবে তার ঐতিহ্য। এ বিষয়ে যোগযোগ করা হলে খামারের ব্যবস্থাপক ডা. তফিজুল ইসলাম বলেন, খামারের সীমানা প্রাচীরের অবস্থা অত্যান্ত দুর্বল। বিষয়টি নিয়ে কয়েক দফা চিাঠি দিয়েছেন হাই কমান্ডকে। অতিদ্রুত সীমান প্রাচীরের কাজ হতে পারে বলে তিনি আশাবাদী বলে দাবী করেন এ কর্মকর্তা। মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে খামারের উপ-পরিচালক সাব্বির আহমেদ বলেন বিষয়টি তিনি অবগত নন। তার পরেও যদি দুগ্ধ ও গবাদি উন্নয়ন কর্মকর্তা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে থাকলে সীমানা প্রাচীর নির্মানে আমার চেষ্টা অব্যহত থাকবে।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১