রাসিক মেয়র লিটনের উদ্যোগে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্যোগে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। গত তিন মাসে সিটি কর্পোরেশনের হটলাইনে কল করে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা নিয়েছেন সহস্রাধিক মানুষ।

সংকট মুহূর্তে তাৎক্ষণিক অক্সিজেন পেয়ে বেঁচে যাচ্ছে অনেক মানুষের জীবন। দুই শতাধিক অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে সিটি কর্পোরেশনের ২৪ ঘন্টা চালু এই অক্সিজেন সেবা প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। ভোর কিংবা মধ্যরাত যখনই প্রয়োজন হটলাইনে (০১৭৫৮-৯০১৯০৩) কল করলেই মানুষের বাড়ি বাড়ি অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌছে সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা।

সিটি কর্পোরেশনের মোট ১২জন কর্মী তিন শিফটে ২৪ ঘন্টা অক্সিজেন সেবা প্রদান কার্যক্রমে নিয়োজিত আছে। করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের অক্সিজেন সেবার পাশাপাশি জরুরি ওষুধ ও খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক সহযোগিতায় রাজশাহী মহানগরীতে করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য গত ১৭ জুন বিনামূল্যে অক্সিজেন প্রদান সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন রাসিক মেয়র।

উদ্বোধনের দিন সিটি বাইরে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ও নাটোর জেলার মানুষের জন্য প্রত্যেক জেলার জন্য ১০টি মোট ৪০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করা হয়। সিটি কর্পোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ডের কার্যালয়ের জন্য কাউন্সিলরদের মাঝে ৩০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ করা হয়।

প্রথমদিন ১০০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে এই সেবা কার্যক্রম চালু হয়। পরবর্তীতে যোগ হয় আরো ১০০টি সিলিন্ডার। বিভিন্ন সময়ে সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন। এসব সিলিন্ডার নিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি বা শ্বাসকষ্টে ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের অক্সিজেন চাহিদা পূরণে নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে সিটি কর্পোরেশন।

জরুরি অক্সিজেন সেবার সমন্বয়কারী রাসিকের মেডিকেল অফিসার ডা. তারিকুল ইসলাম বলেন, মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন স্যারের দিকনির্দেশনায় এখন পর্যন্ত এক হাজারের অধিক মানুষকে অক্সিজেন সেবা প্রদান করা হয়েছে।

এদের মধ্যে চার শতাধিক মানুষকে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদানের পাশাপাশি ওষুধ ও খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। ২৪ ঘন্টা অক্সিজেন সেবা প্রদান কার্যক্রম চালু আছে। সব সময় গাড়ি ও অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রস্তুত থাকে। যখনই নাগরিকরা কল করেন, তাৎক্ষণিক আমরা বাড়ি বাড়ি সিলিন্ডার পৌছে দিচ্ছি। প্রয়োজনে চিকিৎসাসেবা ও পরামর্শ প্রদান করছি।

তিনি আরো জানান, প্রথমের দিকে অক্সিজেন সিলিন্ডারের চাহিদা অনেক বেশি ছিল। এখন করোনা সংক্রমণ কম হওয়ায় চাহিদাও কম। তবে আমরা সব সময় প্রস্তুত আছি। যখনই কল আসছি, বাড়ি বাড়ি ছুটে যাচ্ছি। এক ব্যক্তি একাধিক সিলিন্ডার প্রয়োজন হলেও সেটিও সরবরাহ করা হচ্ছে।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০