রুয়েট ডিসি আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা ২০১৭

নিজস্ব প্রতিনিধি: “প্লাস্টিক নগরী পেছনে ফেলে, এই নস্টালজিয়ার মফস্বলে তর্ক-কথারা প্রাণ পাক কোঁজাগরি আকাশ-তলে” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ১২ ও ১৩ অক্টোবর রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত হয়েছে ‘রুয়েট ডিসি আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা ২০১৭’। সংসদীয় ধারার এ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয় হতে আগত ২৬টি দল। এ আয়োজনটি রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং রুয়েট ডিবেটিং ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত হয়েছে। স্পন্সর হিসেবে ছিল রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, কো-স্পন্সর: ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড, কফি পার্টনার: এস্প্রেসো, রেডিও পার্টনার: রেডিও রুয়েট, কো-স্পন্সর: মেন্টরস। ১২ অক্টোবর সন্ধ্যা ৬টায় রুয়েট ডিবেটিং ক্লাবের মাননীয় মডারেটর মোঃ হারুন-অর-রশীদ, অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর, মানবিক বিভাগ, রুয়েট; রুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি নাঈম রহমান নিবিড়; অন্যান্য শিক্ষক ও অতিথি বৃন্দ; বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আগত বিতার্কিক বৃন্দ; রুয়েট ডিসির সদস্যবৃন্দ প্রমুখের উপস্থিতিতে এই আয়োজনের উদ্বোধন ঘোষিত হয়। অতিথিদের বক্তব্য শেষে মনোজ্ঞ সংগীত সন্ধ্যা ও ফানুস ওড়ানোর মধ্য দিয়ে প্রোগ্রাম সমাপ্ত হয়। আয়োজনের দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রম শুরু হয় সকাল ৯টায়। রুয়েট ডিসির আয়োজকবৃন্দ, সকল বিতার্কিক দল এবং সম্মানিত বিচারকবৃন্দের উপস্থিতিতে সূচনা বক্তব্য ও দিকনির্দেশনা দান করেন রুয়েট ডিসির মডারেটর ও চিফ এডজুডিকেটর হারুন-অর-রশিদ। আনুষাঙ্গিক প্রস্তুতি ও মোশন সরবরাহ শেষে বিতার্কিকবৃন্দ ও বিচারকগণ উদ্দিষ্ট ভেন্যুতে প্রবেশ করেন। “এই সংসদ কুর্দিস্তান ও কাতালানদের স্বাধীনতার দাবীকে সমর্থন করবে” মোশন নিয়ে সূচিত হয় প্রিলিমিনারি ও ট্যাব রাউন্ড। তিন রাউন্ড বিতর্কের পর ট্যাব প্রক্রিয়ায় শীর্ষ ৮টি দল কোয়ার্টার ফাইনাল রাউন্ডে উপনীত হয়। তীব্র দ্বৈরথ ও তর্কযুদ্ধ শেষে বিদায় নেয় ৬টি দল, ফাইনালে উঠে আসে রুয়েট ডিবেটিং ক্লাব ও বিএফডিএফ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

“এই সংসদ মনে করে, বর্তমান রোহিঙ্গা সঙ্কটটি ধর্মীয়” -সরকারি দল হিসেবে এই বিলটি উপস্থাপন করে রুয়েট ডিসি। অপরপক্ষে বিলটি পাস হওয়ার বিপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে বিএফডিএফ। এই সংসদীয় বিতর্কে মাননীয় স্পিকারের ভূমিকায় সংসদ পরিচালনা করেন বিডিএফ-এর সাধারণ সম্পাদক মুরাদ রনি। বিচারকদের রায়ে ৪-৩ ব্যালটে জয়লাভ করে বিএফডিএফ। যৌথ ভাবে শ্রেষ্ঠ বক্তা হয় সায়েম আহমেদ, রুয়েট ডিসি এবং নাজনীন আক্তার দীপ্তি, বিএফডিএফ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়৷

সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরষ্কার বিতরণীতে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-এর সম্মানিত উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাঃ রফিকুল আলম বেগ, ছাত্রকল্যাণ পরিচালক প্রফেসর এ এইচ এম কামরুজ্জামান সরকার, রুয়েট ডিসির মডারেটর হারুন-অর-রশিদ, রুয়েট ডিসির প্রেসিডেন্ট তানসিফ আনজার, জেনারেল সেক্রেটারি মোঃ আসাদুজ্জামান সাকিব, কনভেনর ও রুয়েট ডিসির সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন চৌধুরী প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সম্মানিত উপাচার্য বলেন, “আমিও ডিবেটিং ক্লাবের সাথে জড়িত ছিলাম। এই যে এরা এত যুক্তি তুলে ধরলো একে অপরের যুক্তি খন্ডন করলো, আমার মন বলছে এগুলা নিয়ে না জানি কতদিন আগে থেকে তাদের চিন্তা করতে হয়েছে নাহলে এত তথ্যসমমৃদ্ধ তারা কি করে হলো। এই পজিটিভ এপ্রোচগুলোই দরকার আমাদের ছেলেদের কাছে। এই তুলে ধরা যুক্তিগুলো যদি আমরা কাজে লাগাতে পারতাম তাহলে বাংলাদেশ বর্তমানে যেই অবস্থানে আছে ১০ বছর আগেই সে অবস্থানে পৌছে যেত। ডিবেটিং ক্লাব অসাধ্য সাধন করেছে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এই সারাদিনের তর্কযুদ্ধে যারা অংশগ্রহণ করেছেন প্রত্যেককে আমি আমার পক্ষ থেকে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।”

সবশেষে বিজয়ী, প্রথম রানার আপ এবং শ্রেষ্ঠ বক্তাদের পুরষ্কার এবং প্রাইজমানি তুলে দেওয়া হয়।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১