সার্কিট হাউজে এমপির সাথে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বাক বিতন্ডা

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরে-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুলের সাথে নাটোর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অ্যাড . সাজেদুর রহমানের তুমুল বাকবিতন্ডা হয়েছে। এ সময় সংসদ সদস্য শিমুল দলীয় কোন্দল সৃষ্টির অভিযোগ এনে সাজেদুর রহমানকে রাজাকার হিসেবে অভিহিত করেন।

অপরদিকে সাজেদুর রহমান এমপি শিমুলের বাবা রাজাকার ছিলেন উল্লেখ করলে সেখানে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে আসেন। গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে নাটোর সার্কিট হাউজে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের সামনে এঘটনা ঘটে।

নাটোর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও সাবেক জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাড, সাজেদুর রহমান জানান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার গণভবনে এসেছেন শুনে তিনি নাটোর সার্কিট হাউজে যান। এসময় তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে জানতে চান, একজন মন্ত্রী নাটোরে আসলেন, অথচ বিষয়টি তিনি নিজে সহ নাটোর পৌর মেয়র এবং সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সহ অন্যান্য আওয়ামীলীগ নেতারা জানতেও পারলেন না এটা কেমন হলো? এ সময় সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল বলেন,সবাইকে বলতে হবে কেন? এনিয়ে কথা কাটাকাি টর এক পর্যায়ে সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল ক্রোধান্বিত হয়ে বলেন, আপনি নাটোরে আওয়ামীলীগের কোন্দলের জন্য দায়ী। আপনি কোন্দলকে জিইয়ে রেখেছেন , আপনিতো একটা রাজাকার। এসময় সাজেদুর রহমান বলেন , আমি মুক্তিযোদ্ধা কিনা রাজাকার তা নাটোরবাসী জানে। কিন্তু তোমার বাবা যে রাজাকার এবং শান্তি কমিটির সাথে জড়িত ছিল এটা নাটোর বাসী জানে। এসময় এমপি শিমুল ও তার অনুসারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে গালালাগাল শুরু করলে সাজেদুর রহমান ঘটনাস্থল ত্যাগ করে বাসায় ফিরে আসেন।

সাজেদুর রহমান দুঃখ করে বলেন, মুক্তি যুদ্ধ চলা কালে তিনি নাটোর ট্রেজারী লুট করে সমস্ত অস্ত্র মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয় জীবন বাজী রেখে সন্মুখ যুদ্ধে লড়েছি। অথচ স্বাধীনতার এত বছর পরে নাতির বয়সী ছেলের কাছ থেকে আমাকে এধরণের কথা শুনতে হলো।

নাটোর সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও নাটোর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন,সাজেদুর রহমান আওয়ামীলীগের একজন বয়োজ্যৈষ্ট নেতা। তিনি মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি জড়িত ছিলেন এবং দীর্ঘদিন জেলা অঅওয়ামীলীগের সভাপতি ছিলেন। তাকে জড়িয়ে এমন বিশ্রী কথার তীব্র প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানাই।

নাটোর পৌরসভার মেয়র এবং জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি উমা চৌধুরী জলি এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, বিষয়টি নিন্দনীয় এবং দুঃখ জনক।

প্রাথমিক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বলেন, তর্কাতর্কির সময় মন্ত্রী মহোদয় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাহেবকে বলেছেন এটি দলীয় নয় সরকারী প্রোগ্রাম। তাই দলীয় কাউকে বলতে বলা হয়নি।

এই রকম আরও খবর দেখুন

সর্বশেষ আপডেট

অ্যার্কাইভ ক্যালেন্ডার
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০